Skip to content Skip to footer

হালিমা শিকদার

আত্ববিশ্বাসী ও সংগ্রামী নারী উদ্যোক্তা হালিমা সিকদার


স্বপ্ন মানুষকে বাঁচিয়ে রাখে, স্বপ্নের সিড়িঁ বেয়ে মানুষ তার সঠিক গন্তব্যে পৌঁছাতে পারে বলে যার দৃঢ় ধারণা সেই প্রবল বিশ্বাসী মানুষটির নাম হালিমা সিকদার(**)। এক সময় তিনি ছিলেন সাধারণ নারীদের একজন। আজ তিনি একজন সফল উদ্যোক্তা সফল ব্যবসায়ী।
পড়ালখা শেষ করে তিনিও ভেবে ছিলেন অন্যের মতো চাকরি করবেন। একটি প্রতিষ্ঠানে তিন বছর চাকরি করার পর মনে হল অন্যের অধীনে কাজ না করে নিজের মতো করে একটি স্বাধীন ব্যবসা করা যায় কিনা। নিজের পরিচিতি ও মেধাকে কাজে লাগিয়ে নতুন কিছু করার দৃঢ় প্রত্যয়ে হালিমা সিকদার আত্ববিশ্বাসী হয়ে উঠেন। তিনি চিন্তা করলেন,সব মানুষই তার পোষাকের প্রতি সচেতন। বিশেষ করে নিত্য নতুন পোষাকের প্রতি মানুষের আগ্রহ বেশী থাকে।
মুসলিম নারীদের লক্ষ্য করে তিনি নারীদের “আবায়া’’ তৈরি ও বিক্রয়ের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন। ঢাকার মোহাম্মদপুরে “সাফেরো” নামে একটি পোষাক প্রতিষ্ঠানের স্বত্বাধীকারী হিসেবে আতœপ্রকাশ করেন।
প্রথমে পরিচিত মানুষদের মাধ্যমে শুরু হলেও ধীরে ধীরে নানা প্রান্তে ছড়িয়ে পড়ে তার বাহারী ধরনের পোষাকের (আবায়া) খবর। সেই পথ চলা শুরু আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। কিন্তু এই পথটা মোটেও মসৃণ ছিলো না বা এখনও নয়। একজন নারীকে একজন উদ্যোক্তা হতে হয় অনেক ধৈর্য্য, সাহস আর ত্যাগের বিনিময়ে। তিনি বলেন, আমি এখন বুক ভরা নি:শ্বাস নিতে পারছি, কিন্তু এক সময় আমি হতাশায় দিন পার করতাম আর এখন আমি ব্যস্ততায় দিন পার করি। আমি এখন স্বাবলম্বী নারী। এমন একটা সময় গেছে যখন আতœীয়স্বজন এমনকি পরিবার থেকেও তীর্যক কথা ছাড়া কিছুই পাইনি। আর সেই অবহেলাই আমাকে অনুপ্রেরণা দিয়েছে নিজে কিছু করার, মাথা তুলে দাঁড়ানোর। পেয়েছি বি’ইয়ার সন্ধান। সাহস, প্রেরণা, প্রশিক্ষণ, মেন্টর আর পেয়েছি উদ্যোক্তাদের একটি পরিবার। তরুণ উদ্যোক্তাদের পরিবার বি’ইয়া’র একজন সদস্য হিসেবে আমি গর্বিত, আনন্দিত।
বর্তমানে তার প্রতিষ্ঠানে পাঁচজন কর্মী রয়েছে, ভবিষ্যতে আরও কর্মসংস্থান সৃষ্টি করবেন। “সাফেরো” প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে নারীদের চাহিদা ভিত্তিক পোষাক সরবরাহ করাই মূল লক্ষ্য। তালিমা কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন এভাবে, বি’ইয়া প্রতিষ্ঠানই আমাকে ব্যবসার নতুন দিগন্ত খুলে দিয়েছে,দিয়েছে মেন্টর। তাদের ঐকান্তিক পরামর্শ আমার পথকে আরও প্রশস্ত করেছে।
আমি স্বপ্ন দেখি “সাফেরো” প্রতিষ্ঠান থেকে ঢাকা ও ঢাকার বাইরে সকল স্থানে তার নিজস্ব ব্রান্ডের পোষাক এক নামে চিনবে।

Leave a comment